-->

শ্রীরাম নবমী ব্রত এবং ব্রতের ফল । Ram Navami Brata with PDF

রাম নবমী ( Rama navami) একটি হিন্দু উৎসব, অযোধ্যার রাজা দশরথ ও রাণী কৌশল্যা সন্তান দেবতা রামের জন্মগ্রহণ উদ্‌যাপন করা। রাম, বিষ্ণুর সপ্তম অবতার, ভগবান বিষ্ণুর মানবীয় রূপের প্রাচীনতম অবতার।

Ram Navami Brata Katha


 এই পবিত্র দিন শুক্লপক্ষের নবম দিনে পড়ে, হিন্দু পঞ্জিকার চৈত্র মাসের নবম দিন। চৈত্রের নয় দিনে বসন্তের নবরাত্রি পালন করা হয়। রাম নবমী সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হিন্দু উৎসবের মধ্যে একটি।

 

শ্রীরাম নবমী ব্রত

ব্রতকথাঃ 

একসময় পদ্মযোনি ব্রহ্মাকে মহর্ষি সনক প্রশ্ন করেছিলেন ও জানতে চেয়েছিলেন যে কীভাবে দশরথ ও কৌশল্যা শ্রীরামচন্দ্রের মতো পুত্র লাভ করেছিলেন। উত্তরে ব্রহ্মা বলেছিলেন যে—মহারাজ দশরথ ও কৌশল্যা দীর্ঘদিন পুত্রাদি লাভ না করে বড়ই চিন্তিত ছিলেন। তাঁরা দুজনে একসময়ে পুত্র লাভের আশায় ভগবান সদাশিবের আরাধনা করেন। পুত্রশোকে কাতর এই দুজনের ভক্তিতে ভগবান সদাশিব খুব সন্তুষ্ট হয়েছিলেন এবং তাঁদের কাছে এসে তাঁদের কী কামনা তা জানতে চেয়েছিলেন। উত্তরে তাঁরা দুজন বলেছিলেন যে কী করলে তাঁরা পুত্রলাভ করতে পারবে তার উপায় তিনি বলেছিল। এই কথা শুনে ভগবান সদাশিব বলেছিলেন যে তাঁরা যদি পুত্রেষ্টি যজ্ঞ করে তাহলে স্বয়ং নারায়ণকে সন্তান হিসাবে পাবেন। এই কথা শুনে মহারাজ দশরথ পুত্রেষ্টি যজ্ঞ করলেন। তার কিছুদিনের মধ্যেই কৌশল্যা গর্ভবর্তী হলেন এবং সঠিক সময়ে শুভলগ্নে চৈত্র মাসের শুক্লপক্ষে, পুনর্বসু নক্ষত্রে নবমী তিথিতে স্বয়ং নারায়ণ শ্রীরামচন্দ্র রূপে জন্মগ্রহণ করলেন দশরথ গৃহে।"


এই কথা শোনার পর মহর্ষি সনক ব্রহ্মাকে এই ব্রতের নিয়ম জানতে চাইলে ব্রহ্মা বললেন যে—ব্রত পালনের আগের দিন নিরামিষ খেয়ে সংযমী হয়ে তৃণ শয্যায় শয়ন করতে হয়। পরদিন সকালে উঠে স্নান করে শুদ্ধাচারে সংকল্প করে প্রথমে কৌশল্যা, তারপর দশরথ ও পরে রামচন্দ্রের পূজা করতে হয়। পাদ্য অর্থ দিয়ে পূজা করে পুষ্পাঞ্জলি দিয়ে সেদিন অষ্টম প্রহরে অষ্টবিধ পূজা করতে হয় এবং ব্রতকথা শুনে রাত্রি অতিবাহিত করতে হয়। আবার পরদিন সকালে স্নান করে বিধিমতো শ্রীরামচন্দ্রের পূজা করতে হয় এবং ব্রাহ্মণকে দক্ষিণা দিয়ে খাওয়াতে হয়। তারপর নিজে পারন করে ব্রত শেষ করতে হয়। এই ব্রতকথা শুনলে রোগী রোগমুক্ত হয়, দরিদ্র ধনবান এবং পুত্রহীনা পুত্রবর্তী হয়। ওই শ্রীরামনবমীর দিন রামচন্দ্রকে প্রণাম করে যেকোন কাজ করলে সুফল মেলে। এই তিথিতে উপোস করে রাত্রি জেগে ও তর্পন করলে ব্রহ্মলোক প্রাপ্তি ঘটে। রামচন্দ্রকে উদ্দেশ্য করে ইষ্টমন্ত্র জপ করতে মন্ত্রের পুনঃশ্চরণ হয়। দশমীর দিন ব্রাহ্মণদের যাওয়াতে ও দক্ষিনা দিতে হয়।


ব্রতফলঃ 

এই ব্রতপালনে শ্রীরামচন্দ্র সন্তুষ্ট হয়ে ব্রতীর মনবাসনা পূরণ করেন। এই ব্রত পালন করলে দুর্বিসহ গর্ভযন্ত্রণা ভোগ করতে হয় না। এই রামনবমীর দিন রামচন্দ্রকে স্মরণ করে যে কাজ করা হয় তা সর্বাঙ্গীন সুসম্পন্ন সফল হয়ে থাকে। এই ব্রতটি অতি পূণা একটি ব্রত। এই ব্রত পালনে মহাপুণ্যি হয়।

Read this: শিবরাত্রির ব্রতকথা - Shiva Ratri Brata Katha in Bengali


You May Like Also Also Like This

Post a Comment

0 Comments