-->

জল সংক্রান্তি ব্ৰত৷ Jol Sankranti Brata Katha

জল সংক্রান্তি ব্ৰত৷ Jol Sankranti Brata Katha,  জল সংক্রান্তি ব্ৰত কি?৷ Jol Sankranti Brata Katha known to all hindus, জল সংক্রান্তি ব্ৰত পালনের নিয়ম৷ Jol Sankranti Brata Katha with pdf. 


জল সংক্রান্তি ব্ৰত

সময়-  বৈশাখের বিষ্ণুপদী সংক্রান্তির দিন এই ব্রত করার বিধি।

 ব্রতদ্রব্য ও উদ্যাপন – এই ব্রত উদযাপন কালে একটি নূতন তামার কুণ্ড নূতন কাপড় বা গামছায় জড়িয়ে নিয়ে তিনটি ডালা, একটি ভূজ্যি, পৈতা ও দক্ষিণা ব্রাহ্মণকে দিতে হবে। 

জল সংক্রান্তি


ব্রতবিধান – বৈশাখী সংক্রান্তির ব্রাহ্মমুহুর্ত্তে স্নানাদি সমাধা করে লক্ষ্মী-নারায়ণের পূজা করতে হবে। ব্রাহ্মণকে জলভরা কলসী ও ভুজি দান করতে হবে। এভাবে প্রতি মাসের সংক্রান্তিতে ব্রত পালন করে উদযাপন করার সময় বছরের শেষে সোনার লক্ষ্মীমূর্তি ও রূপার নারায়ণের মূর্তি পূজা করতে হবে।

ব্রতকথা – শর শয্যায় শায়িত ভীষ্মকে যুধিষ্টির জিজ্ঞাসা করলেন—মানব কি কাজ করলে ধনবান, গুণবান ও জিতেন্দ্রিয় হতে পারে। পিতামহ ভীষ্ম উত্তরে বলেছিলেন বহু কাল পূর্ব্বে ঋষি মস্তিব্যের গুণবতী ভার্য্যা নানা রঙের গুঁড়ো দিয়ে প্রত্যহ তাঁদের ঘর সাজিয়ে রাখতেন আর তাতে ঋষি খুব সন্তুষ্ট হতেন।

একদা গুণবতী ভাৰ্য্যা ঋবিকে জিজ্ঞাসা করলেন—মানুষ কি করলে ঠাণ্ডা জল পেতে পারে। নারোগ থাকতে পারে আর কখনো তাকে নরকে যেতে হয় না। উভয়ে ঋবি বললেন—জল সংক্রান্তি ব্ৰত কথা সৰ্ব্বশ্রেষ্ঠ কাজ। এই ব্রত সর্ব্ব ব্রতের শ্রেষ্ঠ, কারণ এই ব্রত ব্রহ্মা স্বয়ং প্রচলন করেছেন। ভক্তিভাবে এই ব্রত আচরণ করলে প্রভৃত ঠাণ্ডা জল প্রাপ্ত হয় আর অনেক সুখ ভোগ করার পরে মৃত্যু হলে বিষ্ণুপদ প্রাপ্ত হয়। কদাচ তাকে নরকে যেতে হয় না।

তারপর ঋষি তাঁর ভার্য্যাকে ব্রত বিধান ব্যাখ্যা করলেন—সকালে স্নান করে শুদ্ধ হয়ে নারায়ণের ও সঙ্কল্প গ্রহণ করতে হবে। তারপর লক্ষ্মী নারায়ণের পূজা করে ভূমি, জলভরা কলসী আর দক্ষিণা প্রদান করে ব্রতকথা শ্রবণ করতে হবে। পরে সামর্থ্যানুসারে ব্রাহ্মণ ভোজন করাতে হবে।

যে স্ত্রী এইরূপ জল সংক্রান্তি ব্রত পালন করে তার সর্ব্বত্র জয়লাভ হয়ে থাকে। সে পিতৃকুল ও শ্বশুরকুলকে সমুদ্ধার করতে সক্ষম হয়। ব্রতকথা – কে রমণী জল সংক্রান্তি ব্রত করে থাকে তাকে কোনদিন বিধবা হতে হয় না। স্বামীর বর্তমানে চিরকাল সুখে শান্তিতে কালযাপন করতে সমর্থ হয়।

You May Like Also Also Like This

Post a Comment

0 Comments