-->

শ্রী শ্রী সরস্বতীর পাঁচালী । Saraswati Panchali

সরস্বতী (Sarasvatī) হলেন হিন্দুধর্মে জ্ঞান, সংগীত, শিল্পকলা, বাক্য, প্রজ্ঞা ও বিদ্যার্জনের দেবী সরস্বতী, লক্ষ্মী ও পার্বতী হিন্দুধর্মে ‘ত্রিদেবী’ নামে পরিচিত।  [ শ্রী শ্রী সরস্বতীর অষ্টোত্তর শতনাম- Saraswati 108 Names  ]
শ্রী শ্রী সরস্বতীর পাঁচালী



 সরস্বতীর পাঁচালী


প্রণাম করিনু সরস্বতীর চরণে। 

যাঁর পূজা করেছিল দেবাসুর গণে॥ 

যাঁর কৃপাবলে মূর্খ হয় জ্ঞানবান। 

তার জন্ম বিবরণ শুন মতিমান৷৷ 

নারায়ণ ছিল যবে অনন্ত শয্যাতে। 

প্রকৃতির সৃষ্টি হয় বাম অঙ্গ হতে ৷৷ 

একই প্রকৃতি পরে নানা মূর্তি হয়। 

তাঁরই রূপ সরস্বতী জানিবে নিশ্চয় ৷৷ 

যেবা করে তাঁর পূজা এই ভূমণ্ডলে। 

চারি বেদ সর্ব শাস্ত্র তার করতলে ৷৷ 

মাঘ মাসে শুক্লপক্ষে পঞ্চমী তিথিতে। 

বিদ্যারম্ভ পূর্বে তাঁরে পূজিবে ভক্তিতে৷৷ 

পূর্ব দিনে হবিষ্যান্ন করিয়া গ্রহণ। 

শ্রীপঞ্চমী দিনে তাঁর করিবে অৰ্চন ৷৷ 

সন্ধ্যা বন্দনাদি ক্রিয়া করি সমাপান। 

মনোমত ঘট এক করিবে স্থাপন৷৷ 

গণেশাদি পঞ্চ দেবে পূজি তারপরে। 

করিবে দেবীর পূজা অতি ভক্তিভরে। 

নৈবেদ্যাদি দিবে যাহা শুন মতিমান। 

ক্ষীর ছানা মিষ্টান্নাদি করিবে প্রদান৷৷ 

শ্বেত পদ্ম কিংবা তাঁরে শ্বেত পুষ্প দিবে। 

নব বস্ত্র দিয়া তাঁরে যতনে পূজিবে ৷৷ 

শঙ্খ আভরণ আদি সুগন্ধী চন্দন। 

শ্বেত পুষ্প মাল্য তাঁরে করিবে অৰ্পণ ৷৷

নানাবিধ ফল মূল সাজায়ে যতনে। 

করিবে দেবীর ধ্যান ভক্তিযুক্ত মনে৷৷ 

শ্বেতবর্ণা হাস্যময়ী অতি মনোহরা। 

রতন ভূষণ তাঁর সর্ব অঙ্গে ধরা ৷৷ 

কোটিচন্দ্র প্রভা তিনি করেন ধারণ।

 শ্বেতবস্ত্র পরিধানে শ্বেত পদ্মাসন। 

ব্রহ্মা বিষ্ণু আদি করি দেবতা নিকর। 

অর্চনা করেন তাঁরে হয়ে একত্তর। 

অসুর দানব আর যত নরগণ। 

ভক্তিভরে সবে তাঁরে করেন অর্চন ৷৷ ‘

ওঁ ঐং সরস্বত্যৈ নমঃ' এই মন্ত্ৰ অষ্টাক্ষর। 

ভক্তিভরে সাধ্যমত জপ নিরন্তর। 

এই মন্ত্র যেইজন জপে ভক্তিভরে। 

দেবী বরপুত্র হয় জানিবে সংসারে। 

পূর্বা কালে এই মন্ত্র ভাগীরথী তীরে ।

নারায়ণ দিয়াছিল বাল্মীকি ঋষিরে ৷৷ 

পুষ্করে শুক্রকে দেন ভৃগু মহামতি। 

মরীচির কাছে পান গুরু বৃহস্পতি ৷৷ 

ভৃগুরে এ মন্ত্র দেন দেব পদ্মাসন। 

জরৎকারু আস্তিকেরে করেন অৰ্পণ ॥ 

কলিযুগে কালিদাস মহামূর্খ ছিল। 

দেবীর কৃপায় মহাকবি যে হইল ৷৷ 

বাক্যের দেবতা তিনি বাগদেবী নাম। 

যাঁহার কৃপায় কথা বলি অবিরাম ৷৷ 

মন্ত্র-তন্ত্র যাহা কিছু সংসার ভিতরে। 

সকলি অসার যদি বাক্য নাহি স্কুরে৷৷ 

মনুষ্য হইয়া যেবা না পূজে তাঁহারে।

সপ্ত জন্ম মূর্খ হয়ে থাকে এ সংসারে। 

বোবা হয়ে সে জনার পঞ্চ জন্ম যায়। 

অতি দুঃখে দিন কাটে নাহিক সংশয়। 

পূজা অন্তে বাগদেবীর বন্দনা করিবে।

 তারপর ভক্তিভরে নির্মাল্য লইবে।

You May Like Also Also Like This

Post a Comment

0 Comments